ক্ষমা চাইলেন নুর

ক্ষমা চাইলেন নুর

বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক : ফেসবুক লাইভে আওয়ামী লীগ সমর্থকদের নিয়ে বিতর্কিত মন্তব্যের জেরে সমালোচনার মুখে পড়েছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদের (ডাকসু) সাবেক ভিপি নুরুল হক নুর। রোববার শাহবাগ থানায় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে নুরের বিরুদ্ধে এ ঘটনায় মামলাও হয়েছে। এবার সেই বক্তব্যের জন্য ক্ষমা চাইলেন নুর।

রোববার রাতে ফেসবুক লাইভে এসে নুর বলেন, ১৭ তারিখের একটি লাইভে আমি স্বভাবতই বলেছি, আমার ১৬ তারিখের কথায় দুঃখ পেয়ে থাকলে, কেউ যদি কষ্ট পেয়ে থাকেন- তাহলে আমি তার জন্য আন্তরিকভাবে দুঃখিত। আমি ক্ষমাপ্রার্থী, স্বাভাবিকভাবে আমার যদি ভুল হয় আমার জায়গা থেকে ১০০ বার ক্ষমাপ্রার্থী থাকবো।

তিনি বলেন, আমি বিনয়ের সঙ্গে সেটার জন্য ক্ষমা চাইবো। কারণ আমার ভুল হতেই পারে, আমি মানুষ ফেরেশতা না। আমার ভুল হলে তার জন্য আমি ক্ষমাপ্রার্থী, আমি ক্ষমা চাই। লাইভের কারণে যেকোনও ভাই-বন্ধু, সহযোদ্ধা ও শুভাকাঙ্ক্ষী আমার জন্য যদি মনে কষ্ট পেয়ে থাকেন তাহলে আমি ক্ষমাপ্রার্থী।

ডাকসুর সাাবেক ভিপি নুর বলেন, আমি একজন তরুণ ছাত্রনেতা হিসেবে প্রতিবার যেখানে মানুষ চুপ করে আছে সেখানে কথা বলে যাচ্ছি। সেখানে অবশ্যই আমাদের কাজগুলোকে ক্ষমার দৃষ্টিতে দেখবেন। সেক্ষেত্রে আমি আমার যে কোনও আচরণের জন্য, সেদিনের জন্য কেউ কষ্ট পেয়ে থাকে আমি নিজে তার জন্য দুঃখ প্রকাশ করছি। এই ঘটনার প্রেক্ষিতে মামলা করা রাজনৈতিক উদ্দেশ্যে হয়রানি করা আমার বিরুদ্ধে রাজনৈতিক ষড়যন্ত্রের একটি অংশ।

তিনি বলেন, স্বাভাবিকভাবেই অল্প বয়সে একটা গুরুদায়িত্ব নিয়ে ফেলেছি আমরা। বিভিন্ন ধরনের মানুষ, পেশাজীবী মানুষের সাথে একটা বোঝাপড়ার মাধ্যমে আমাদের একটা রাজনৈতিক পরিস্থিতি ডেভেলপ করেছে। যে কারণে আমরা কথা বলার ক্ষেত্রে, কাজ করার ক্ষেত্রে সিনিয়রদের কাছ থেকে শেখার চেষ্টা করেছি। তারা যখন যেসব বিষয়গুলোতে আমাদেরকে উপদেশ দেয় আমরা সেসব বিষয়গুলো মেনে চলি।

নুর বলেন, বিশেষ করে আমি যাদের সাথে মিশি তারা আমাকে বলে, তোমার কথাবার্তা যেন শুধু ইসলাম কেন্দ্রিক না হয়, সকল ধর্মের মতাদর্শের মানুষদের সহনশীলতার কথা থাকে, সম্প্রীতির কথা থাকে, তোমার কথায় যেন সহিংসতার ঘটনা না থাকে। আমি চেষ্টা করি কথাগুলো মেনে চলার এবং আমার কাজের ক্ষেত্রে প্রতিফলন ঘটানোর।

তিনি আরও বলেন, কিছু ঘটনা ব্যাখ্যা করার জন্য আমি আমার স্বাভাবিক জায়গা থেকে রাগ ক্ষোভ আবেগ অনুভূতির জায়গা থেকে কিছু কথা বলেছিলাম। আমি মনে করি অবশ্যই আওয়ামী লীগে অনেক ধর্মপ্রাণ মানুষ আছে ধর্মপ্রাণ মুসলমান আছে, সব ধর্মেরই লোক আছে এবং সব দলেই সব ধর্মেরই ধর্মপ্রাণ লোক আছে। আমি আওয়ামী লীগ সমর্থককে কিংবা আওয়ামী লীগকে আক্রমণ করে কোনও কথা বলিনি।

More News...

যখনই যেটার দরকার পুলিশকে সেই ভূমিকা পালন করতে হবে : শেখ হাসিনা

যুবলীগ নেতাকে হত্যার দায়ে ১০ জনের মৃত্যুদণ্ড, ৮ জনের যাবজ্জীবন