স্বপ্নের মতো আরেকটি দিন পার করে ইতিহাসের সামনে টাইগাররা

স্বপ্নের মতো আরেকটি দিন পার করে ইতিহাসের সামনে টাইগাররা

ক্রীড়া প্রতিবেদক : নিউজিল্যান্ডের মাটিতে নতুন বছর এক নতুন বাংলাদেশকে দেখছে ক্রিকেট বিশ্ব। টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপজয়ী কিউইদের মাটিতে যেভাবে চোখে চোখ রেখে লড়াই করে যাচ্ছে টাইগাররা, তাতে এই দলটির প্রশংসা না করে থাকতে পারছেন না ক্রিকেট বিশ্লেষকরা। প্রথম তিন দিনের মতো চতুর্থ দিনও দারুণভাবে শেষ করেছে টাইগাররা। কিছু সুযোগ নষ্ট কিংবা ভুলের কারণে সব পারফরম্যান্স ম্লান হওয়ার পথে দলকে দারুণ ব্রেক থ্রু এনে দেন এবাদত হোসেন। তার জমাট আঘাতের পর কিউইদের মাটিতে প্রথমবার টেস্ট জয়ের হাতছানি দিচ্ছে বাংলাদেশকে।

আজ মঙ্গলবার মাউন্ট ম্যাঙ্গুইনতে দিনের প্রথম সেশনে ৪৫৮ রানে গুটিয়ে যায় বাংলাদেশ। প্রথম ইনিংসে কিউইদের করা ৩২৮ রানের বিপরীতে ১৩০ রানের লিড নেয় মুমিনুলরা। দ্বিতীয় ইনিংসে ব্যাট করতে এসে ২ দুই উইকেট হারিয়ে লিড পেরিয়ে যায় কিউইরা। যদিও ৬ রান লিড নিতেই তিন ব্যাটারকে হারায় তারা। দিন শেষে ১৪৭ রান তোলা কিউইদের লিড ১৭ রান। ব্যাট হাতে ৩৭ রানে অপরাজিত টেইলের সঙ্গী রাচীন রবিন্দ্র ৬ রান।

প্রথম ইনিংসে বাংলাদেশের দেওয়া লিড মোকাবিলায় শুরুটা ভালো হলো না স্বাগতিকদের। প্রথম ইনিংসের মতো এবারও ব্যর্থ অধিনায়ক টম লাথাম। দলীয় ২৯ রানের মাথায় এই ব্যাটারকে সাজঘরে ফেরান তাসকিন। বোল্ড হয়ে ফেরার আগে ৩০ বলে দুই বাউন্ডারিতে ১৪ রান করেন তিনি।

তিনে এসে শুরু থেকে বাংলাদেশের বোলারদের তোপের মুখে পড়েন আগের ইনিংসের সেঞ্চুরিয়ান ডেভন কনওয়ে। এই ব্যাটারকে বেশ ভুগিয়েছেন টাইগার বোলাররা। অন্য প্রান্তে থাকা ওপেনার উইল ইয়ংকেও একই কায়দায় চেপে ধরেন তাসকিনরা। সাফল্য আসতে খুব একটা অপেক্ষা করতে হয়নি। দলীয় ৬৩ রানের মাথায়ই কনওয়েকে ফেরান এবাদত। ৪০ বলে ১৩ রান করা এই ব্যাটার ক্যাচ তুলে দেন সাদমান ইসলামের হাতে। তাতেই বাজে বিদায় ঘণ্টা।

দিনের শেষ সেশনে দারুণ দৃঢ়তা দেখায় রস টেইলর ও উইল ইয়ং। বেশ কয়েকবার সুযোগ তৈরি করেও এই জুটি ভাঙতে ব্যর্থ হন বাংলাদেশ। খানিকটা হতাশ হওয়া বাংলাদেশ নষ্ট করে বেশ কয়েকটি রিভিউও। এরই মাঝে দলীয় ৯৩, ব্যক্তিগত ১৬ রানের মাথায় টেইলরকে ফেরাতে পারতো বাংলাদেশ। সহজ ক্যাচ ফেলে দিয়ে টেইলরকে জীবন দেন সাদমান ইসলাম।

৫২তম ওভারে এসে বাংলাদেশের দেওয়া ১৩০ রানের লিড পেরিয়া যায় তারা। তবে এই যুগলের ৭৩ রানের জুটি আর বড় হতে দেননি এবাদত হোসেন। ৬ রান লিড হওয়ার পরই ইয়ংকে (৬৯) ফিরিয়েন ভাঙেন জুটি। একই ওভারের পঞ্চম বলে নতুন ব্যাটার হেনরি নিকোলসেও ফেরান এই পেসার। শেষ বেলায় রবিন্দ্রকে নিয়ে কোনো ভাবে দিন পার করেন টেইলর।

এর আগে, দিনের শুরুর সেশনে চার উইকেট নিয়ে বেশি সময় দাঁড়াতে পারেনি বাংলাদেশ। আগের দিনের ৪০১ রানের সঙ্গে ৫৭ রান যোগ করে সবকয়টি উইকেট হারায় সফরকারীরা। যদিও নিউজিল্যান্ডের মাটিতে ইংল্যান্ডের পর সবচেয়ে বেশি সময় ব্যাট করার সাহসিকতা প্রদর্শন করেছেন বাংলাদেশি ব্যাটাররা।

More News...

জাতীয় প্রেসক্লাবে বিড়ি শ্রমিকদের সংবাদ সম্মেলনে প্রধানমন্ত্রীকে অভিনন্দন

কৃষকদের টাকা দিলে ফেরত দেয়, কোটিপতিরা দেয় না’