বিপিএলে বিসিবির ফ্র্যাঞ্চাইজি, স্বচ্ছতা নিয়ে শঙ্কিত চট্টগ্রাম

বিপিএলে বিসিবির ফ্র্যাঞ্চাইজি, স্বচ্ছতা নিয়ে শঙ্কিত চট্টগ্রাম

ক্রীড়া প্রতিবেদক : বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের (বিপিএল) প্লেয়ার্স ড্রাফটের কয়েক ঘণ্টা আগেই হুট করেই ঢাকার ফ্র্যাঞ্চাইজির মালিকানা থেকে সরিয়ে দেওয়া হয় রুপা অ্যান্ড মার্ন গ্রুপকে। মূলত বোর্ডের বেধে দেওয়া শর্ত পূরণ করতে না পারায় তাদের দল দিতে অস্বীকৃতি জানায় বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি)।

প্লেয়ার্স ড্রাফটের আগ মুহূর্তে এমন সিদ্ধান্তের পর বিপাকে পড়া ঢাকার দায়িত্বভার কাঁধে তুলে নেয় বিসিবি। তবে হুট করে এমন সিদ্ধান্তের পর খানিকটা বিব্রত হয় বাকি ৫ ফ্র্যাঞ্চাইজি।

বোর্ডের এমন আচরণে বেশ অবাক হয়েছেন বিপিএলের এই আসরের দল চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্সের কর্তারা। ফ্র্যাঞ্চাইজিটির কর্ণধার কে এম রিফাতুজ্জামান সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে এমনটাই জানান।

ফ্র্যাঞ্চাইজিটির এই কর্ণধার বলেন, ‘প্রথমত বলতে পারেন এটা আমাদের জন্য আশ্চর্যজনক ব্যাপার হয়ে এসেছিল। আমরা বোর্ডের সঙ্গে আলোচনা করেছি তারা জানালো অনেকটা দূর্ঘটনাবশত এমনটা হয়েছে।’

তিনি আরও বলেন, ‘যে নির্দিষ্ট ফ্র‍্যাঞ্চাইজি ছিল তারা কিছু জিনিস ঠিকঠাক করতে পারেনি বলে শেষ মুহূর্তে তাদের মালিকানা বাতিল হয়। ওই মুহুর্তে বিসিবি আসলে কাকে দেবে সেটা কঠিন ছিল।’ তবে বোর্ড ঢাকার দায়িত্বভার অন্য ফ্র্যাঞ্চাইজিকে বুঝিয়ে না দিলে সেক্ষেত্রে টুর্নামেন্টে স্বচ্ছতার জায়গায় প্রভাব পড়বে বলে মনে করছেন চট্টগ্রামের মালিকানা নেওয়া ফ্র্যাঞ্চাইজির এই কর্তা।

তিনি বলেন, তারা বলেছে এটা কাউকে না কাউকে দেওয়া হবে। তো এটা হলে আপনারা যেটা বলছেন সেটা (বিসিবির দল বলে পক্ষপাতিত্ব নিয়ে সন্দেহ) আমাদের মাথায় ঘুরপাক খাবে না।’

রিফাত আরও বলেন, ‘যদি এমনটি না হয় সেক্ষেত্রে স্বভাবতই মনে শঙ্কা জাগবেই। বোর্ডের নিজের দল থাকলে স্বাভাবিকভাবে মানসিক দিক দিয়ে একটা শঙ্কা থাকবেই। তবে আমার মনে হয় পুরো বিষয়টি মাঠে নামলে আমরা বুঝতে পারব।’

আগামী ২১ জানুয়ারি থেকে মাঠে গড়াবে বিপিএলের অষ্টম আসর। ১৮ ফেব্রুয়ারি ফাইনালের মধ্য দিয়ে পর্দা নামবে টুর্নামেন্টটির।

More News...

সল্টের ‘কালবৈশাখী ঝড়ে’ নববর্ষ বরণ কলকাতার

নেইমার পেলেন বড় সুখবর