কক্সবাজারে পর্যটকদের নিয়ে গলাকাটা বাণিজ্য, আলুভর্তার প্লেট ৩০০ টাকা!

কক্সবাজারে পর্যটকদের নিয়ে গলাকাটা বাণিজ্য, আলুভর্তার প্লেট ৩০০ টাকা!

কক্সবাজার প্রতিনিধি : কক্সবাজারে পর্যটকদের নিয়ে গলাকাটা বাণিজ্য করছে অসাধু ব্যবসায়ীরা। হোটেল-মোটেল ছাড়াও পরিবহন ভাড়া আদায় করছে দ্বিগুণের বেশি।

শহরের অটোবাইক, রিকশাচালক ও রেস্টুরেন্ট সব জায়গায় এই গলাকাটা বাণিজ্য চলছে। এতে করে দূর-দূরান্ত থেকে আসা পর্যটকরা হয়রানি ও প্রতারিত হচ্ছেন।

অবশ্য, এসব অভিযোগ প্রমাণিত হলে যথাযথ আইনগত ব্যবস্থা নেওয়ার কথা জানিয়েছেন পুলিশ ও জেলা প্রশাসন।

স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীতে টানা তিন দিনের ছুটিতে পাঁচ লাখেরও বেশি পর্যটক এখন কক্সবাজার অবস্থান করছেন। ঘুরে বেড়াচ্ছেন কক্সবাজারের আকর্ষণীয় পর্যটন স্পটগুলোতে। এতে স্বাভাবিক জীবনযাত্রায় কিছু প্রভাব পড়েছে।

এই সুযোগকে কাজে লাগিয়ে কিছু অসাধু পর্যটন ব্যবসায়ী গলাকাটা বাণিজ্যে মেতে উঠেছে। কক্সবাজারের হোটেল, মোটেল, রেস্টুরেন্ট ও পরিবহনগুলো আদায় করছে যেনতেন ভাড়া।

এতে দূর-দূরান্ত থেকে ভ্রমণে আসা পর্যটকরা হয়রানি ও প্রতারণার শিকার হচ্ছেন। এমন অবস্থা চলতে থাকলে বিশ্বের দীর্ঘতম সমুদ্র সৈকতের গৌরব বহনকারী কক্সবাজারের পর্যটন শিল্পে নেতিবাচক প্রভাব পড়বে বলে মনে করছেন সচেতন মহল।

দেখা গেছে, হোটেল মোটেল গুলোতে স্বাভাবিক ভাড়ার চেয়ে অতিরিক্ত রুম ভাড়া আদায় করছে। প্রতিটি হোটেলে প্রকাশ্যে এসব ভাড়া আদায় করা হচ্ছে। আগে যে রুম ভাড়া ১ থেকে ২ হাজার টাকা ছিল, তা বেড়ে এক লাফে ৩ থেকে ৫ হাজার টাকা পর্যন্ত আদায় করছে। একইভাবে পরিবহন, খাবারের দোকান ও রেস্টুরেন্টে অস্বাভাবিক দামে পর্যটকদের ঠকাচ্ছে।

বিশেষ করে শহরের কলাতলী মোড় থেকে সুগন্ধা পয়েন্ট পর্যন্ত ইজিবাইক ও রিকশা ভাড়া জনপ্রতি ৫ থেকে ১০ টাকা। যদি কেউ প্রাইভেটে আসে তাহলে ৩০ থেকে ৪০ টাকা পর্যন্ত ভাড়া আদায় করার বিধান রয়েছে। কিন্তু, রিকশা ও ইজিবাইক চালকরা আদায় করছেন ১০০ থেকে ১৫০ টাকা।

বিশেষ করে এক শ্রেণীর ইজিবাইক চালক পর্যটক দেখলেই দ্রুত পাশে গিয়ে কৌশলে গাড়িতে ওঠায়। পরে পথ অনেক দূর আছে, এমন মিথ্যা অজুহাত দিয়ে ভিন্ন পথে নিয়ে আদায় করছে অতিরিক্ত ভাড়া। এতে করে কক্সবাজার পর্যটন শিল্প নিয়ে পর্যটকদের মধ্যে বিরূপ প্রভাব পড়ছে।

সুমাইয়া আক্তার ও মহসীন পারভেজ ঢাকা থেকে কক্সবাজার ভ্রমণে এসেছেন একদিন আগে। এতে খাবারের সমস্যা পড়েছেন। তারা জানান, দুপুরে এক প্লেট আলুভর্তার দাম রেখেছে ৩০০ টাকা। দুই পিস কোরাল মাছের দাম রেখেছে ৭০০ টাকার বেশি।

একই কথা বলছেন, রাজশাহী থেকে আসা চৌধুরী শফিকুল ইসলাম। তিনি স্ত্রী ও সন্তানদের নিয়ে কক্সবাজারে এসে পড়েছে বেকায়দায়। তার ভাষ্যমতে, যে হোটেলে রুম বুকিং দিয়েছেন সেটি কোনো রকমের। অথচ বুকিং নেওয়ার সময় বলেছিল থ্রি স্টার মানের। কিন্তু এসে দেখি দুজন থাকা কষ্টের। মাগরিবের পর মশার যন্ত্রণায় অতিষ্ঠ।

কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতের লাবনী পয়েন্ট টুরিস্ট পুলিশ কার্যালয়ের সঙ্গে লাগোয়া ‘কয়লা রেস্টুরেন্ট’। এ রেস্টুরেন্টের বিরুদ্ধে একই অভিযোগ করেছেন অনেক পর্যটক।

কক্সবাজারে বেড়াতে এসে বেসরকারি সংস্থায় কর্মরত সোহেল আরমান বলেন, শুধু গলাকাটা বললেই কম হবে, রীতিমতো অবাক হয়েছি ‘কয়লা রেস্টুরেন্টে’ এক বাটি মুগডালের দাম রাখা হয়েছে সাড়ে ৩০০ টাকা। অথচ এ মানের অন্য রেস্টুরেন্টে এক বাটি মুগডালের দাম নেওয়া হচ্ছে ১৫০ টাকা। শুধু ডাল নয়, এ রেস্টুরেন্টে সবকিছুরই বাড়তি দাম।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, শুধু কোরাল রেস্টুরেন্ট বা কয়লা রেস্টুরেন্ট নয়, কক্সবাজার হোটেল, মোটেল, জোন, বিচ এলাকা, ইনানীসহ মেরিন ড্রাইভ সড়কের বিভিন্ন স্থানে যে চার শতাধিক রেস্টুরেন্ট রয়েছে, এর মধ্যে বেশির ভাগ রেস্টুরেন্টে চলছে গলাকাটা বাণিজ্য। এতে হয়রানি ও প্রতারণার শিকার হচ্ছেন কক্সবাজার ভ্রমণে আসা পর্যটকরা।

হোটেল-মোটেলগুলোতে অতিরিক্ত ভাড়া নেওয়ার কথা স্বীকার করে কক্সবাজার হোটেল মোটেল মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক মো. আবুল কাসেম বলেন, ভরা মৌসুমে হোটেলের রুম ভাড়া একটু বেশি। তবে মাত্রাতিরিক্ত যে হোটেল মালিক ভাড়া বেশি আদায় করে আমরা তাদের বিরুদ্ধে প্রশাসনের কাছে অভিযোগ দায়ের করবো।

তিনি বলেন, খাবারের রেস্টুরেন্টগুলোতে অনেক বেশি দাম নেওয়া হচ্ছে। এতে ভ্রমণে আসা পর্যটকদের বাড়তি টাকা গুনতে হচ্ছে। আমরা তাদের বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য প্রশাসনকে জানাবো।

কক্সবাজারের অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট (পর্যটন সেল) মো. আবু সুফিয়ান বলেন, আগত পর্যটকদের হয়রানি করা কোনোভাবেই মেনে নেওয়া হবে না। যেখানেই অভিযোগ পাওয়া যাবে, সঙ্গে সঙ্গে সেখানে গিয়ে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। আমাদের একাধিক টিম কাজ করছে।

More News...

বিড়ির শুল্ক প্রত্যাহারসহ চার দাবিতে পাবনায় মানববন্ধন ও স্মারকলিপি প্রদান

পাগলা মসজিদের দানবাক্সে পাওয়া গেল পৌনে ৮ কোটি টাকা