কলার খোসার নানান উপকারিতা

কলার খোসার নানান উপকারিতা

স্বাস্থ্য ডেস্ক : কলা খেয়ে এর খোসা ফেলে না দিয়ে বিভিন্ন কাজে লাগাতে পারেন। খাওয়ার পাশাপাশি ত্বকে লাগাতে পারেন। এই খোসার রয়েছে অনেক উপকারিতা-

হজমে সহায়ক: এতে উচ্চমাত্রায় ফাইবার রয়েছে। নিয়মিত কলার খোসা খেলে হজমপ্রক্রিয়ার উন্নতিতে সহায়তা করবে। এটি কোষ্ঠকাঠিন্য এবং ডায়রিয়াতে বেশি উপকারী। পেটের বিরক্তিকর সমস্যায় ভুগলে নিয়মিত কলার খোসা খাওয়া উচিত।

দাঁতের উজ্জ্বলতায়: বিশেষজ্ঞদের মতে, প্রতিদিন কলার খোসা দিয়ে এক মিনিট দাঁত ঘষুন। এক সপ্তাহ পর দেখবেন দাঁত উজ্জ্বল হয়েছে। এটি পটাশিয়াম, ম্যাগনেশিয়ামে ভরপুর। আপনি যখন খোসা দিয়ে দাঁত ঘষেন; এর এনামেল খনিজ উপাদান শোষণ করে নেয় এবং আরো সাদা করে।

ব্রণ তাড়াতে: ব্রণ থেকে মুক্তি পেতে কলার খোসা ব্যবহার করতে পারেন। ব্রণ আক্রান্ত স্থানে কলার খোসা দিয়ে নিয়মিত ঘষুন; এক সপ্তাহের মধ্যেই পার্থক্য বুঝতে পারবেন। কলার খোসা ত্বকের প্রদাহ কমাতে সহায়তা করে। এতে রয়েছে উচ্চমাত্রায় ফিনোলিকস যা অ্যান্টিমাইক্রোবিয়ালসে গঠিত; এটি ব্রণের তাড়াতে কাজ করে।

ত্বকের বলিরেখা কমায়: অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট এবং ভিটামিন ‘সি’ এ ভরপুর কলার খোসা ত্বকের স্থিতিস্থাপকতা ধরে রাখে এবং বলিরেখা কমাতে সহায়তা করে।

শরীরের ব্যথা উপশম করে: এক গবেষণায় দেখা গেছে, কলার খোসায় ক্যারোটিনয়েড এবং পলিফ্যানলের মতো বায়োএকটিভ উপাদানে ভরপুর। এছাড়াও এতে প্রদাহপ্রতিরোধী উপাদানে ভরপুর যা শরীরে ব্যথা কমাতে সহায়তা করে।

অতিবেগুনী রশ্মি থেকে ত্বককে সুরক্ষায়: কলার খোসায় ফিনোলিকস, ফ্লেভনয়েড, ন্যানিন, ক্যারোটেনয়েড এবং অ্যালকালোয়েডের মতো উচ্চমাত্রায় বায়োঅ্যাকটিভ উপাদান রয়েছে। এগুলো ত্বককে ফ্রি রেডিক্যাল প্রতিরোধ করে এবং ত্বককে অতিবেগুনী রশ্মি থেকে সুরক্ষা করে।

More News...

হার্ট অকেজো হওয়ার কারণ জানলে অবাক হবেন –

চার বছরে যক্ষ্মামুক্ত ৭ হাজার রোগী