টিপাইমুখ বাঁধ নির্মাণের প্রতিবাদ করায় বাবা গুম হন : আবরার ইলিয়াস

টিপাইমুখ বাঁধ নির্মাণের প্রতিবাদ করায় বাবা গুম হন : আবরার ইলিয়াস

নিজস্ব প্রতিবেদক : ভারত সরকার কর্তৃক টিপাইমুখ বাঁধ নির্মাণের প্রতিবাদে আন্দোলন করতে গিয়ে আমার বাবা ও তার গাড়ি চালক গুম হন বলে অভিযোগ করেছেন নিখোঁজ বিএনপি নেতা এম. ইলিয়াস আলীর ছেলে আবরার ইলিয়াস।

আন্তর্জাতিক গুম সপ্তাহ উপলক্ষে মায়ের ডাক নামে একটি সংগঠনের উদ্যোগে শুক্রবার জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে এক মানববন্ধন কর্মসূচিতে অংশ নিয়ে ইলিয়াস আলীর ছেলে ব্যারিস্টার আবরার ইলিয়াস এ অভিযোগ করেন।

তিনি বলেন, দীর্ঘদিন ধরে নিখোঁজ রয়েছেন আমার বাবা। প্রধানমন্ত্রী, আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীসহ বিভিন্ন জায়গায় ধরনা দিয়েও তার খোঁজ পাওয়া যাচ্ছে না। তাদের প্রতি যে অন্যায় হয়েছে তার থেকে প্রতিকার পেতে হলে সরকারের বিরুদ্ধে দুর্বার গণ-আন্দোলন গড়ে তুলতে হবে।

ইসমাইল হোসেন বাতেন ২০১৯ সালের ২০ জুন থেকে নিখোঁজ হন। মানববন্ধনে অংশ নিয়ে তার মেয়ে আনিসা ইসলাম বলেন, বাবাকে ফিরে পেতে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী র‌্যাবের কাছেও অভিযোগ করেছি আমরা। কিন্তু দুই বছর হয়ে গেলেও এখনো কোনো প্রতিকার পাওয়া যায়নি।

মানববন্ধনে সংহতি প্রকাশ করে দেওয়া বক্তব্যে নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না বলেন, এখানে অনেক শিশুরা তাদের কথা বলেছেন, যা শুনে আমার চোখের কোণে পানি এসেছে। যতবারই এই অনুষ্ঠানে আসি, ততবারই এই হৃদয়বিদারক দৃশ্য বুকের ভেতর নিতে হয়েছে। কিন্তু এই সরকার অমানবিক সরকার। তাই কেঁদে চোখের জল ফেলে বিচার চেয়ে কোনো লাভ নেই।

তিনি বলেন, আমাকেও ২৩ ঘণ্টা গুম করা হয়েছিল। যদিও আমার সাথে অত খারাপ ব্যবহার করেনি কিন্তু এই ২৩ ঘণ্টা মানসিক যে যন্ত্রণা পেয়েছি তা আমি ও আমার পরিবার এখনো হাড়ে হাড়ে উপলব্ধি করি। প্রধানমন্ত্রীর কাছে বিচার চাইলে বিচার পাওয়া যাবে না। এ জন্য অনুষ্ঠানের ভিডিও অনলাইনে ছড়িয়ে দিতে হবে যাতে দেশে-বিদেশে সবাই দেখতে পারে।

মানববন্ধন আয়োজনের সমন্বয়কারী আফরোজা ইসলাম আঁখির সভাপতিত্বে ও বাংলাদেশ জাতীয় মানবাধিকার সমিতির চেয়ারম্যান মো. মঞ্জুর হোসেন ঈসার পরিচালনায় আরও বক্তব্য দেন দৃকের প্রতিষ্ঠাতা আলোকচিত্রী শহীদুল আলম, ডাকসুর সাবেক ভিপি নুরুল হক নুর, অধিকারের পরিচালক নাসির উদ্দিন এলান, জাতীয় মুক্তি কাউন্সিলের সম্পাদক ফয়জুল হাকিম লালা, গুম সাজেদুল ইসলাম সুমনের বড় বোন মারুফা ইসলাম ফেরদৌসী, গুম মাইকেল চাকমার পক্ষে পাহাড়ি ছাত্র পরিষদের নেতা রিপন জ্যোতি চাকমা, গুম মনির হোসেনের বড় ভাই শহিদুল্লাহ, গুম ড্রাইভার কাউসারের মেয়ে লামিয়া আক্তার মিম, গুম মো. তারিকুল ইসলাম ঝন্টুর মা হাসিনা বেগম, গুম ইসলাম হোসেন বাতেনের মেয়ে আনিসা ইসলাম ইনশা, গুম হওয়া রামপুরা থানা ছাত্রলীগের সভাপতি মোয়াজ্জেম হোসেন তপুর মামা কামাল হোসেন প্রমুখ। উপস্থিত ছিলেন গণসংহতি আন্দোলনের সমন্বয়কারী জোনায়েদ সাকি, মানবাধিকার সংগঠক নূর খান লিটন, নিরাপদ বাংলাদেশ চাইয়ের চেয়ারম্যান খন্দকার মাসুদ উজ জামান, ছাত্রনেতা মামুন খান প্রমুখ।

More News...

কুষ্টিয়ায় নকল আকিজ বিড়িসহ বিড়ি তৈরির উপকরণ জব্দ

মে দিবস উপলক্ষে জাতীয় প্রেসক্লাবে বিড়ি শ্রমিকদের র‌্যালি ও সমাবেশ