মামলা জিতলেন ব্র্যাড, নাখোশ জোলি

মামলা জিতলেন ব্র্যাড, নাখোশ জোলি

বিনোদন ডেস্ক : হলিউডের একসময়কার জনপ্রিয় আলোচিত জুটি ব্র্যাড পিট ও অ্যাঞ্জেলিনা জোলি। ভালোবেসে বিয়েও করেছিলেন তারা। তবে তাদের সেই সংসার বেশিদিন টেকেনি। ২০১৬ সালে বিচ্ছেদের আবেদন করেছিলেন জোলি। ২০১৯ সালে তা চূড়ান্ত হয়। তাদের এই বিচ্ছেদ আজও অনেক ভক্ত মেনে নিতে পারেননি।

বিচ্ছেদের শুরু থেকেই ৬ সন্তানের অভিভাবকত্ব নিয়ে লড়ছেন ‘ব্র্যাঞ্জেলিনা’। এই দম্পতির ছয় সন্তান- ম্যাডক্স, প্যাক্স, জাহারা, শিলোহ, নক্স, ভিভিয়েন। এদের মধ্যে প্রথম তিন সন্তানকে দত্তক নিয়েছেন ব্র্যাড-জোলি। ব্র্যাড পিটের সঙ্গে সম্পর্ক শুরুর আগেই ম্যাডক্স ও জাহারাকে দত্তক নিয়েছিলেন জোলি। এরপর ব্র্যাড পিটও সন্তান দত্তক নেন।

বিচ্ছেদের পর যৌথভাবে সন্তানদের দেখাশোনার দায়িত্ব নিতে চেয়েছিলেন ব্র্যাড। অন্যদিকে, জোলি চাচ্ছিলেন সন্তানরা তার কাছেই থাকুক। এ নিয়ে তৈরি হয় জটিলতা। অবশেষে আদালতের দ্বারস্থ হন ‘ব্র্যাঞ্জেলিনা’ দম্পতি।

বড় ছেলে ম্যাডক্সের বয়স ১৮ পেরিয়েছে। তাই ম্যাডক্স এই লড়াইয়ের অংশ নন। তাই ছয় সন্তানের অভিভাবকত্বের লড়াই শেষ হলো পাঁচ সন্তানকে নিয়ে। আর সেখানে হারলেন অস্কারজয়ী অভিনেত্রী, প্রযোজক ও পরিচালক অ্যাঞ্জেলিনা জোলি। জিতলেন ব্রাড পিট।

বিবিসি তাদের এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে, আদালতের রায়ে পাঁচ সন্তানের অর্ধেক অভিভাবকত্ব পাবেন ব্র্যাড। এই রায়ে এখন সন্তানদের সঙ্গে আরো বেশি সময় কাটাতে পারবেন ‘ওয়ান্স আপন অ্যা টাইম ইন হলিউড’ অভিনেতা।

যদিও এটি সম্ভাব্য রায়। চূড়ান্ত রায়ের আগে সৌজন্যমূলক এমন রায় দেয়া হয়। তবে ব্র্যাডের ঘনিষ্ঠ একটি সূত্র জানিয়েছে, রায়ের পর এই অভিনেতা আনন্দে আছেন।

এদিকে রায় শুনে নাখোশ অ্যাঞ্জেলিনা জোলি। তার অভিযোগ, বিচারক জন ওডারকার্ক তার সন্তানদের নিরাপত্তা ও ভালো থাকার জন্য প্রয়োজনীয় প্রমাণ-সাক্ষ্য শুনতে অস্বীকার করেছেন।

একটি সূত্র জানিয়েছে, ৪৫ বছর বয়সী জোলি তাই এখন বিচারকের বিচার চেয়ে এবং রায়ের পুনর্বিবেচনা করে আপিল করেছেন।

এছাড়াও অভিনেত্রী জোলি আরো দাবি করেছেন, বিচারক কোর্টের কোড মানেননি। কোড অনুযায়ী, এমন কোনো ব্যক্তির হাতে সন্তানের অভিভাবকত্বের দায়িত্ব দেয়া যাবে না, যার বিরুদ্ধে ডমেস্টিক ভায়োলেন্সের অভিযোগ রয়েছে। যদিও ব্র্যাডের বিরুদ্ধে জোলির এই অভিযোগ প্রমাণ হয়নি।

এছাড়া ১৪ বছরের ঊর্ধ্বে কোনো সন্তানের ব্যক্তিগত ইচ্ছা-অনিচ্ছা ওই কোড অনুযায়ী আদালতের শোনার কথা। ব্র্যাড ও অ্যাঞ্জেলিনার তিন সন্তান (প্যাক্স, জাহারা ও শিলো) এখন টিনএজার। কিন্তু তাদের কাউকে সেই সুযোগ দেয়া হয়নি বলেও অভিযোগ করেছেন জোলি।

এই অভিযোগের বিরুদ্ধে ব্র্যাডের আইনজীবী বলেন, ‘গত ছয় মাস ওডারকার্ক স্বচ্ছতার সঙ্গে সাক্ষ্য-প্রমাণ পর্যালোচনা করেছেন, বিশেষজ্ঞ এবং সাক্ষীদের বয়ান শুনেছেন।’

‘মিস্টার অ্যান্ড মিসেস স্মিথ’ সিনেমার সেটে ব্র্যাড পিট ও অ্যাঞ্জেলিনা জেলির পরিচয়। বেশ কয়েক বছর প্রেম করার পর ২০১৪ সালে বিয়ে করেন এই জুটি।

More News...

স্থগিত করা খেলা হবে, মামলাও চলবে

পদ্মকে নিয়ে আবেগঘন পোস্ট পরীমনির