আওয়ামী লীগ সরকারের পরিকল্পনায় আগামী প্রজন্ম দেশ এগিয়ে নেবে: প্রধানমন্ত্রী

আওয়ামী লীগ সরকারের পরিকল্পনায় আগামী প্রজন্ম দেশ এগিয়ে নেবে: প্রধানমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, বর্তমান আওয়ামী লীগ সরকার ভবিষ্যতে দেশকে সামনে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার পরিকল্পনা বাস্তবায়নের একটি কাঠামো করে দিয়ে যাচ্ছে, যাকে ধরে আগামী প্রজন্ম দেশকে সামনে এগিয়ে নিয়ে যেতে পারবে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ২০৪১ সাল পর্যন্ত কি করণীয়, স্বাধীনতার শতবর্ষ উদযাপনকালে ২০৭১ সালে বাংলাদেশ কোথায় যাবে বা ২১০০ সালে এই ব-দ্বীপ অঞ্চলের বাসিন্দারা যেন এক সুন্দর জীবন পেতে পারে তারও একটা পরিকল্পনা করে দেওয়া হয়েছে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, কারণ লক্ষ্য যদি স্থির থাকে তাহলে এগিয়ে চলা সম্ভব। সেজন্য যতটুকু আমরা করে দিয়ে যাচ্ছি এতে আমাদের পরবর্তী প্রজন্ম যারাই আসবে তারা যেন উন্নয়নের গতিধারাকে অব্যাহত রাখতে পারে।

তিনি বলেন, এই কাঠামোটা সময়ের বিবর্তনে পরিবর্তনশীল। কারণ যুগের চাহিদার সঙ্গে তাল মিলিয়েই চলতে হবে। আধুনিক প্রযুক্তি, বিজ্ঞানের বিকাশ, নব নব উদ্ভাবন আমাদের নতুন করে পথ দেখাবে। যার সঙ্গে তাল মিলিয়েই চলতে হবে।

প্রধানমন্ত্রী বৃহস্পতিবার সকালে স্বাধীনতা পুরস্কার ২০২১ প্রদান অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির ভাষণে এসব বলেন।

তিনি নয় বিশিষ্ট ব্যক্তি ও একটি প্রতিষ্ঠানকে দেশের সর্বোচ্চ সম্মান স্বাধীনতা পুরস্কার তুলে দেন।

জাতীয় পর্যায়ে গৌরবজ্জ্বল ও কৃতিত্বপূর্ণ অবদানের স্বীকৃতিস্বরূপ তার সরকারি বাসভবন গণভবনে অনুষ্ঠিত এক অনুষ্ঠানে বিজয়ীদের এ পুরস্কার তুলে দেন প্রধানমন্ত্রী।

স্বাধীনতা ও মুক্তিযুদ্ধ ক্ষেত্রে এবার চারজন স্বাধীনতা পুরস্কার পেয়েছেন। তারা হলেন মরহুম এ কে এম বজলুর রহমান, শহীদ আহসান উল্লাহ মাস্টার, বীর মুক্তিযোদ্ধা মরহুম ব্রিগেডিয়ার জেনারেল খুরশিদ উদ্দিন আহমেদ ও মরহুম আখতারুজ্জামান চৌধুরী বাবু।

বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিতে পুরস্কার পেয়েছেন ড. মৃন্ময় গুহ নিয়োগী। সাহিত্যে কবি মহাদেব সাহা, সংস্কৃতিতে নাট্যজন আতাউর রহমান ও সুরকার-গীতিকার গাজী মাজহারুল আনোয়ার স্বাধীনতা পুরস্কার পেয়েছেন।

‘সমাজসেবা/জনসেবা’ ক্ষেত্রে অধ্যাপক ডা. এম আমজাদ হোসেন এবং গবেষণা ও প্রশিক্ষণে স্বাধীনতা পুরস্কার পেয়েছে বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা কাউন্সিল।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, ‘আমাদের নতুন প্রজন্ম এখন ইতিহাসকে জানতে চায়। শিকড়ের সন্ধান করে বিজয়ের কথাটা চিন্তা করে নিজেদের গর্বিত মনে করে-এই ধারা অব্যাহত থাকলে অবশ্যই বাংলাদেশ সারা বিশ্বে উন্নত সমৃদ্ধ সোনার বাংলাদেশ হিসেবে প্রতিষ্ঠা লাভ করবে এবং জাতির পিতার স্বপ্ন আমরা পূরণ করতে সক্ষম হব।’

স্বাধীনতা পুরস্কারের ক্ষেত্রে পুরস্কারপ্রাপ্ত ব্যক্তিকে ৫ লাখ টাকা, ১৮ ক্যারেট মানের ৫০ গ্রাম স্বর্ণপদক, পদকের একটি রেপ্লিকা ও একটি সম্মাননাপত্র দেওয়া হয়।

মুক্তিযুদ্ধ বিষয়কমন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক এবং সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।

মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ আয়োজিত এ পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম এবং তিনি পুরস্কার বিজয়ীদের সাইটেশনও পাঠ করেন।

পুরস্কার বিজয়ীদের পক্ষে আতাউর রহমান নিজস্ব অনুভূতি ব্যক্ত করে অনুষ্ঠানে বক্তৃতা করেন।

যারা পুরস্কার পেয়েছেন তাদের আন্তরিক অভিনন্দন জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমি এটাই চাই আপনাদের পদাংক অনুসরণ করে আমাদের প্রজন্মের পর প্রজন্ম দেশপ্রেমে উদ্বুদ্ধ হবে,স্ব-স্ব কর্মস্থানে মেধা এবং মননের মাধ্যমে তারা যোগ্য একটা অবস্থান করে নেবে এবং দেশ ও জাতির জন্য তারা কিছু অবদান রেখে যাবে। আপনাদের কাছ থেকে তারা অন্তত উৎসাহ পাবে। দেশের জন্য, জাতির জন্য বা জাতির কল্যাণের জন্য কাজ করতে।’

অদৃশ্য শত্রু করোনাভাইরাসের নিহতদের আত্মার মাগফিরাত কামনা করে তিনি পুনরায় বলেন, দেশ যে এগিয়ে যাচ্ছে সেটা যেন এগিয়ে যেতে পারে সেজন্য সবাই দোয়া করবেন এবং কাজ ও করবেন এবং প্রজন্মের পর প্রজন্ম যেন দেশটাকে এগিয়ে নিয়ে যেতে পারে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমরা জানি হয়তো হাতেগোনা কয়েকজনকে পুরস্কার দিতে পেরেছি, কিন্তু আমাদের সমাজে অনেকে রয়েছে যাদের আমাদের পুরস্কৃত করা উচিত। কারণ সমাজের অনেক ক্ষেত্রে অবদান তারা রেখে যাচ্ছেন। তাদের পুরস্কৃত করতে পারা মানে আমাদের জাতিকে এবং নিজেদের পুরস্কৃত করা।

তিনি বলেন, আমরা চাই আমাদের দেশটা যেন এগিয়ে যায় এবং দেশের মানুষ যাতে সব সময় মাথা উঁচু করে বাঁচতে পারে। আর আজকে দেশের ৫০ বছর পূর্তিতে উন্নয়নশীল দেশের যে মর্যাদাটা পেয়েছি সেটাকে ধরে রেখেই আমরা আরো সামনে এগিয়ে যেতে চাই।

শেখ হাসিনা বলেন, আজ এটুকু বলতে পারি, আমাদের সবসময় একটা প্রচেষ্টা ছিল যে আমরা মুক্তিযুদ্ধে বিজয়ী জাতি। তাই সারাবিশ্বে মাথা উঁচু করে চলব। কারো কাছে হাত পেতে, করুণা ভিক্ষা করে আমরা চলব না। বাংলাদেশকে আত্ম মর্যাদাশীল হিসেবে গড়ে তুলব।

আজকের বাংলাদেশকে সে অবস্থানে নিয়ে আসতে অনেক ঘাত-প্রতিঘাত তাকে অতিক্রম করতে হয়েছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, গত ৪০ বছরের সংগ্রামের মধ্য দিয়ে অন্তত এটুকু করতে পেরেছি যে বাংলাদেশ আজ স্বল্পোন্নত দেশ থেকে উন্নয়নশীল দেশ হিসেবে প্রতিষ্ঠা পেয়েছে। জাতির পিতার জন্মশতবার্ষিকী এবং স্বাধীনতার ৫০ বছর যখন আমরা উদযাপন করছি তখনই এই স্বীকৃতিটা আমরা পেলাম।

তিনি বলেন, ইতিহাস থেকে জাতির পিতার নাম মুছে ফেলার চেষ্টা হয়েছিল। জাতির পিতাকে হত্যার পর এমন একটা সময় এসেছিল কেউ মুক্তিযোদ্ধা পরিচয় দেয়ার সাহস পে তনা। মনে হতো সেটা যেন বেশ অপরাধের ব্যাপার ছিল, অথচ জাতির পিতার ডাকে মুক্তিযুদ্ধে যারা অংশ নিয়েছিলেন তারা সবকিছু ফেলে চলে গিয়েছিলেন। তাদের পরিবার-পরিজনও নানাভাবে কষ্ট পেয়েছে। তাই তারা বংশ পরম্পরায় যেন সম্মানটা পায় সেজন্য আমার ক্ষুদ্র প্রচেষ্টায় আমি চেষ্টা করে যাচ্ছি।

তিনি বলেন, মুক্তিযোদ্ধারা অনেকেই আজকে বেঁচে নেই কিন্তু তাদের পরিবার রয়েছে, তাদের ঘর করে দেওয়া থেকে মাসোহারার ব্যবস্থাসহ নানাভাবে আমরা সহযোগিতার প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি।

শেখ হাসিনা বলেন, আমি মনে করি সেই দিন জাতির পিতার ডাকে সাড়া দিয়ে যারা হাতে অস্ত্র তুলে নিয়ে যুদ্ধ করেছিলেন তারা যদি সেই সাহসটা না দেখাতেন তাহলে আমরা স্বাধীনতা পেতাম না, হয়তো সব ব্যর্থ হয়ে যেত।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, জাতির পিতা একটি বৈরি পরিবেশ থেকে সমগ্র জাতির মাঝে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা সঞ্চারিত করে জাতিকে রক্তস্নাত বিজয় এনে দেন।

শেখ হাসিনা একাত্তরে জাতির মহান আত্মত্যাগ পুণরায় স্মরণ করে দৃপ্ত কণ্ঠে বলেন,‘ এত রক্ত, এত ত্যাগ কোন দিনও বৃথা যেতে পারে না। একে আমরা বৃথা যেতে দিতে পারি না। আমরা একে বৃথা যেতে দেব না।’

 

More News...

৪ মে থেকে বাড়ছে ট্রেনের ভাড়া

কোন ক্ষেপণাস্ত্র দিয়ে ইরানে হামলা চালিয়েছে ইসরায়েল?