শুল্ক-কর থাকছে না ৪৬ ধরনের পণ্যে

শুল্ক-কর থাকছে না ৪৬ ধরনের পণ্যে

নিজস্ব প্রতিবেদক : বিশ্বজুড়ে এখন সবচেয়ে বড় আতঙ্কের নাম করোনাভাইরাস। এই ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে অন্য দেশের মতো বাংলাদেশেও প্রতিদিন মানুষের মৃত্যু হচ্ছে। করোনাভাইরাস সংক্রমণ রোধে সরকারের ঘোষিত লকাডাউনের পর করোনা প্রতিরোধে ভাইরাস পরীক্ষার টেস্ট কিট, চিকিৎসা সরঞ্জাম, হ্যান্ড স্যানিটাইজার তৈরির উপাদান, মাস্ক, সুরক্ষা পোশাক, কাঁচামালসহ ৪৬ ধরনের পণ্য আমদানিতে শুল্ক-কর অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে।

করোনাভাইরাস প্রতিরোধী উপাদন আমদানিতে সব ধরনের শুল্ক-কর অব্যাহতি দিয়ে বুধবার (১৯ মে) জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর) প্রজ্ঞাপন জারি করেছে।

এসব পণ্য আমদানিতে আমদানি শুল্ক, নিয়ন্ত্রণমূলক শুল্ক, সম্পূরক শুল্ক, মূল্য সংযোজন কর (মূসক) বা ভ্যাট, আগাম ভ্যাট ও অগ্রিম কর দিতে হবে না। আগামী ৩০ জুন পর্যন্ত এই সুবিধা নিতে পারবেন এসব পণ্য আমদানিকারকরা।

হ্যান্ড স্যানিটাইজার তৈরি করতে আইসোপ্রোপাইল অ্যালকোহল প্রয়োজন হয়। এই আইসোপ্রোপাইল অ্যালকোহল আমদানি করলে দিতে হবে না কোনো শুল্ক।

কোভিড–১৯–এ দুই ধরনের টেস্ট কিটস এবং ডায়াগনস্টিক টেস্ট যন্ত্রপাতিতেও থাকছে না কোনো শুল্ক কর। এছাড়া এই পণ্যের তালিকায় আছে তিন স্তরের সার্জিক্যাল মাস্ক, সুরক্ষা পোশাক, প্লাস্টিক ফেস শিল্ডস, সার্জিক্যাল পোশাক, বিশেষ ওভেন স্যুট, মেডিকেল প্রটেকটিভ গিয়ার, সুরক্ষা চশমা, ডিসইনফেকটেন্টস।

এনবিআর চেয়ারম্যান আবু হেনা মো. রহমাতুল মুনিম স্বাক্ষরিত ওই প্রজ্ঞাপনে আমদানিকারককে বেশ কিছু শর্ত দিয়েছে।

এর মধ্যে রয়েছে কী পরিমাণ পণ্য আমদানি করা হবে তা ঔষধ প্রশাসন অধিদফতর কর্তৃক অনুমোদিত হতে হবে। গার্মেন্টস পণ্য আমদানিতে লাগবে বিজেএমইএ ও বিটিএমএ’র প্রত্যয়ন, আমদানি করা পণ্যগুলো মানসম্মত কি না, তা ঔষধ প্রশাসন অধিদফতর নিশ্চিত হতে হবে এবং নিয়মিত তদারক করবে।

More News...

নয় দিনে এ‌ল ৭ হাজার কোটি টাকার রেমিট্যান্স

জাল টাকার কারবারির সর্বোচ্চ শাস্তি যাবজ্জীবন